• রোববার   ২৯ মে ২০২২ ||

  • জ্যৈষ্ঠ ১৫ ১৪২৯

  • || ২৬ শাওয়াল ১৪৪৩

সর্বশেষ:
বাংলাদেশের রাজনৈতিক স্থিতিশীলতার প্রশংসা পর্তুগালের মরণোত্তর ‘দ্যাগ হ্যামারশোল্ড’ পেলেন দুই বাংলাদেশি শান্তিরক্ষী দেশে ভেনামি চিংড়ি চাষে আগ্রহ বাড়ছে কৃষকদের শিল্পনগরী ও অর্থনৈতিক অঞ্চল হচ্ছে দিনাজপুর: হুইপ ইকবালুর রহিম আরও সময় নিয়ে বৈঠকের প্রস্তুতি নিতে চায় দুই ঢাকা-দিল্লি

ফের সুযোগ নিতে চায় হতাশ বিএনপি

– নীলফামারি বার্তা নিউজ ডেস্ক –

প্রকাশিত: ১৪ মে ২০২২  

অসুস্থতা বিবেচনায় শর্ত সাপেক্ষে একাধিক দুর্নীতি মামলায় বিএনপি চেয়ারপার্সন খালেদা জিয়ার সাজা বারবার সাময়িকভাবে স্থগিত করা হয়েছে। তবে সাজা স্থগিতের সময়ই খালেদা জিয়াকে সাজামুক্ত করার সুযোগ নিতে বারবার আন্দোলন করেছে বিএনপি। এখনো বিএনপির অপচেষ্টা চলমান থাকলেও হতাশ হয়ে পড়েছেন দলটির নেতারা।

জানা গেছে, ২০১৮ সাল থেকে সাজাপ্রাপ্ত খালেদা জিয়াকে কারামুক্ত করতে দেশজুড়ে বিক্ষোভের ডাক দেয় বিএনপি। কিন্তু আগুন সন্ত্রাসসহ নানা কারণে পদে পদে তৃণমূলের বিক্ষোভ ব্যর্থ হওয়ায় হতাশায় ভুগতে শুরু করেন বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্যরা। বিগত চার বছরে স্থায়ী কমিটির শতাধিক বৈঠক শেষে কর্মসূচি ঘোষণা করেন বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর।

এরপর বেশ কয়েকবার রাজধানী ঢাকাসহ সারাদেশে বিক্ষোভ মিছিল ও সমাবেশ করার কথা ছিল বিএনপির। কিন্তু রাজধানীতে তেমন সাড়া মেলেনি দলটির নেতাকর্মীদের। আর সারাদেশের বিএনপির সব কর্মসূচি ছিল নিরুত্তাপ। এমন প্রেক্ষাপটে বিএনপির অভ্যন্তরে বিরাজমান হতাশা আরো তীব্র হয়েছে।

তৃণমূলের নেতারা বলেন, এতদিন আন্দোলন-কর্মসূচির জন্য তৃণমূলের কর্মীদের মনোভাবে কঠোর ছিল। তখন সেদিকে ভ্রূক্ষেপ করেনি কেন্দ্রীয় কমিটি। যখন আমাদের আগ্রহ কমে গেছে, অনাস্থা তৈরি হয়েছে- তখনই মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর তীব্র আন্দোলন-বিক্ষোভের ডাক দিচ্ছেন। এমন বাস্তবতায় কীভাবে তীব্র কর্মসূচির আশা করে কেন্দ্রীয় নেতারা?

নেতারা বলেন, বিএনপি ঈদের পর কর্মসূচির ঘোষণা দিলেও আমাদের তৃণমূলে স্বতঃস্ফূর্ততা নেই। আমাদের অংশগ্রহণ না থাকায় নির্ধারিত কর্মসূচি বাতিল করতে বাধ্য হয়েছেন মির্জা ফখরুল।

এ বিষয়ে নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক বিএনপির স্থায়ী কমিটির এক সদস্য বলেন, মূলত নিরাপদ স্থান বেছে বেছে কেন্দ্রীয় নেতারা কর্মসূচিতে অংশ নেন। কথায় আছে- সময় গেলে সাধন হবে না। যখন তৃণমূলের দাবি ছিল আন্দোলন, তখন নেতারা নিশ্চুপ ছিলেন। এখন নেতারা আন্দোলন চায় কিন্তু তৃণমূল চুপ করে আছে। এ সমন্বয়হীনতাই বিএনপিকে নিঃশেষ করছে।

রাজনৈতিক বিশ্লেষকরা বলছেন, মানবিক বিবেচনায় নির্বাহী আদেশে খালেদা জিয়ার সাজা স্থগিতের মেয়াদ বারবার বাড়ানো হয়েছে। কিন্তু প্রতিবার মেয়াদ বাড়ানোর সময় সাজাপ্রাপ্ত খালেদা জিয়াকে একেবারে মুক্ত করতে অবৈধ সুযোগ নিতে চায় বিএনপি নেতারা। এজন্য প্রত্যেকবারই খালেদা জিয়াকে মুক্ত করার জন্য আন্দোলন হয়েছে। কিন্তু তা সফল হয়নি। এখন এ ব্যর্থতার জন্য শুধু তৃণমূল নয়, বিএনপির কেন্দ্রীয় নেতারা হতাশাগ্রস্ত। তবুও খালেদা জিয়াকে কারামুক্ত করার ষড়যন্ত্র বন্ধ করতে চান না মির্জ ফখরুলরা।