• শনিবার   ১৩ আগস্ট ২০২২ ||

  • শ্রাবণ ২৯ ১৪২৯

  • || ১৪ মুহররম ১৪৪৪

সর্বশেষ:
পঞ্চগড়ে পাঁচ হাজার গাছ কেটে ফেলেছে দুর্বৃত্তরা তিনমাস পর হারানো মোবাইল উদ্ধার করে ফিরিয়ে দিল পুলিশ এসডিজি অর্জনে সংসদ সদস্যদের ভূমিকা গুরুত্বপূর্ণ: স্পিকার বৈধ পথে রেমিট্যান্স পাঠাতে সৌদি প্রবাসীদের প্রতি আহ্বান পদ্মা সেতু চালুর পর দর্শনার্থীতে মুখর বঙ্গবন্ধুর সমাধিসৌধ

রাজনৈতিক দৈন্যতায় নিঃশেষ হচ্ছে বিএনপি

– নীলফামারি বার্তা নিউজ ডেস্ক –

প্রকাশিত: ২৫ জুলাই ২০২২  

রাজনৈতিক দৈন্যতায় নিঃশেষ হচ্ছে বিএনপি                         
কেন্দ্রীয় নেতৃত্বে একের পর এক ভুল সিদ্ধান্ত ও তৃণমূলের নেতাকর্মীদের হতাশায় রাজনৈতিক দৈন্যতায় নিঃশেষ হচ্ছে বিএনপি। মূলত দলটির অভ্যন্তরীণ কোন্দলে এ অবস্থার সৃষ্টি হয়েছে। সবমিলে রাজনৈতিক দল হিসেবে বিএনপি তার গুরুত্ব হারাচ্ছে বলে মনে করেন রাজনৈতিক বিশ্লেষকরা।

তাদের মতে, দ্বাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনকে কেন্দ্র করে সম্প্রতি বিএনপি যেসব সিদ্ধান্ত নিয়েছে, তার সবই আত্মঘাতী। এগুলোর কোনো রাজনৈতিক ভিত্তি নেই।

এমনকি যারা বিএনপিপন্থী বুদ্ধিজীবী হিসেবে পরিচিত, তারাও বিএনপির এই অবস্থানের সমালোচনা করছেন। এসবের মাঝেই বিএনপি চেষ্টা করছিল তৃণমূলকে শক্তিশালী করতে। কিন্তু তাদের এই ভঙ্গুর দলটিতে বহিষ্কার রাজনীতি প্রবল আকার ধারণ করেছে।

দলীয় কোন্দল, কেন্দ্রীয় নেতৃত্বে মতের অমিলসহ নানা সমস্যায় জর্জরিত দলটিতে এখন নতুন যুক্ত হয়েছে ‘বহিষ্কার’ সংস্কৃতি। একে একে বিভিন্ন পর্যায়ের জনপ্রিয় নেতাদের বহিষ্কার করছে বিএনপি। সবার ক্ষেত্রেই বলা হচ্ছে, দলীয় শৃঙ্খলা পরিপন্থী কর্মকাণ্ডে জড়িত থাকার অভিযোগে বহিষ্কার করা হচ্ছে। কিন্তু যাদের বহিষ্কার করা হচ্ছে, তারা জানেন না কোন কারণে তাদের বহিষ্কার করা হলো।

রাজনৈতিক বিশ্লেষকদের মতে, বিএনপির রাজনৈতিক কর্মকাণ্ডের গ্রাফ বরাবরই নিচের দিকে যাচ্ছে। এই অধঃপতন দলীয় নানা সিদ্ধান্তের ফলেই হচ্ছে। সঠিক সময়ে সঠিক সিদ্ধান্ত নিতে না পারাটাও মূল কারণ। বর্তমানে বিএনপির মধ্যে অসন্তোষ, বিভক্তি এবং মতের অমিল চরম আকার ধারণ করেছে। বিশেষ করে জিয়া পরিবারের বাইরে বিএনপিকে বিজেপি আদলে সাজানোর জন্য একটি মেরুকরণের চেষ্টা চলছে। এ কারণেই এসব ঘটছে দলে। কে কাকে বহিষ্কার করছে, তার কোনো ঠিক নেই।

তারা আরো বলেন, নির্দলীয় ও নিরপেক্ষ তত্ত্বাবধায়ক সরকার ছাড়া বিএনপি কোনো নির্বাচনে যেতে চায় না। কিন্তু বাস্তবতা ভিন্ন। নির্বাচনী ট্রেন কোনো দলের জন্য থেমে থাকে না। বর্তমান বাস্তবতায়  বিএনপি যদি আগামী নির্বাচনে অংশ না নেয় তাহলে তারাই নিশ্চিহ্ন হবে। মাঠ পর্যায়ে তারা আরো বেশি ক্ষতিগ্রস্ত হবে। বর্তমান প্রেক্ষাপটে বিএনপির নির্দলীয় ও নিরপেক্ষ তত্ত্বাবধায়ক সরকার দাবি অযৌক্তিক। তাদের উচিত মাঠ গুছিয়ে আগামী নির্বাচনের প্রস্তুতি নেয়া।