মঙ্গলবার   ১৯ নভেম্বর ২০১৯   অগ্রাহায়ণ ৪ ১৪২৬   ২১ রবিউল আউয়াল ১৪৪১

আগামী জুলাই মাসে বাংলাদেশ থেকে সরাসরি ট্রেন যাবে দার্জিলিং

– নীলফামারি বার্তা নিউজ ডেস্ক –

প্রকাশিত : ০১:৫৯ এএম, ২২ সেপ্টেম্বর ২০১৯ রোববার

৫৪বছর পর ২০২০ সালের জুলাই মাসে বাংলাদেশের চিলাহাটি ও ভারতের হলদিবাড়ি হয়ে সরাসরি দার্জিলিং যাবে ট্রেন। বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা এবং ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে এর উদ্বোধন করবেন।

শনিবার দুপুরে(২১সেপ্টেম্বর) উত্তরাঞ্চলের নীলফামারীর ডোমার উপজেলার চিলাহাটি রেলস্টেশনে ৮০ কোটি ১৬লাখ ৯৪হাজার টাকা ব্যয়ে ভারতের সাথে রেল সংযোগ স্থাপনের লক্ষ্যে চিলাহাটি এবং চিলাহাটি বর্ডারের মধ্যে  ব্রডগেজ রেলপথ নির্মাণ প্রকল্পের উদ্বোধন অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে এ কথা বলেন রেলপথ মন্ত্রী নুরুল ইসলাম সুজন। এ সময় তিনি রেলপথ নির্মাণ কাজের ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপন করেন । 

উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথির বক্তব্য রাখেন ভারতীয় হাই কমিশনার রিভা গাঙ্গুলি দাস, নীলফামারী সদর আসনের সংসদ সদস্য আসাদুজ্জামান নুর, নীলফামারী-১ আসনের সংসদ সদস্য আফতাব উদ্দিন সরকার, নীলফামারীর সংরক্ষিত নারী আসনের সংসদ সদস্য রাবেয়া আলীম। এ ছাড়া অনুষ্ঠানে স্বাগত বক্তব্য রাখেন পশ্চিমাঞ্চল রেলের জেনারেল ম্যানেজার হারুন-অর রশিদ। অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন রেলপথ মন্ত্রনালয়ের ভারপ্রাপ্ত সচিব মজিবুর রহমান।  

ভারতীয় হাই কমিশনার রিভা গাঙ্গুলি দাস তার বক্তব্যে পাক ভারত যুদ্ধের সময় বন্ধ হয়ে যাওয়া চিলাহাটি-হলদিবাড়ি রেলপথটির ইতিহাস তুলে ধরে বলেন, আজ খুব ভাল লাগছে যে এই রেলপথ পুনরায় স্থাপনের মাধ্যমে  ভারতের দার্জিলিং জেলা নিউ জলপাইগুড়ি থেকে চিলাহাটি , নীলফামারী, সান্তাহার ,পাকশী ,দর্শনা হয়ে কোলকাতা ও ঢাকা সরাসরি ট্রেন যোগাযোগ স্থাপন হবে। তিনি বলেন মুক্তিযুদ্ধের সময় বাংলাদেশের সঙ্গে ভারতের সু-সর্ম্পক তৈরী হয়। যা বিদ্যমান থাকায় ভারত সরকারের পক্ষে বাংলাদেশকে  সহযোগীতা করা হচ্ছে। ভারত সরকার বাংলাদেশের মুক্তিযোদ্ধাদের ফ্রি ভিসা ও চিকিৎসা এবং মুক্তিযোদ্ধা  শিক্ষার্থী সন্তানদের  বৃত্তি প্রদান করছে।  

তিনি বাংলাদেশের চিলাহাটি ও ভারতের হলদিবাড়ি দিয়ে পুনরায় রেলপথ চালু হলে ব্যবসা বাণিজ্যের সম্প্রসারণসহ বন্ধুত্বের সম্পর্ক আরো উন্নত হবে বলে আশাবাদ ব্যক্ত করেন। 

প্রধান অতিথির বক্তব্যে রেলপথ মন্ত্রী নুরুল ইসলাম সুজন আরো বলেন, মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার প্রচেষ্টায় চিলাহাটি-হলদিবাড়ি ট্রেন রুটটি চালু হচ্ছে। 

এই পথদিয়ে সহজেই এই অঞ্চলের মানুষরা দার্জিলিং এর নিউজলপাইগুড়ি এবং কলকাতা যেতে পারবেন।  

তিনি বলেন, ১৯৬৫সালে ভারত-পাকিস্তান যুদ্ধের পর এই রেলপথটি বন্ধ হয়ে গেলে আর চালু হয়নি। বাংলাদেশ-ভারত সরকারের এই উদ্যোগের ফলে স্বর্ণালি যুগ হিসেবে প্রসারিত হবে। 

পরে মন্ত্রী চিলাহাটি রেলস্টেশনসহ প্রকল্প এলাকা পরিদর্শন করেন। এ সময় অন্যান্যদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন নীলফামারী জেলা প্রশাসক হাফিজুর রহমান চৌধুরী, পুলিশ সুপার মুহাম্মদ আশরাফ হোসেন, নীলফামারী ৫৬ বিজিবি ব্যাটালিয়ানের অধিনায়ক লে. কর্নেল মোঃ শাহ আলম সিদ্দিকী,  রেলপথ মন্ত্রনালয়ের মহাপরিচালক খন্দকার শহিদুল ইসলাম, ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠান ম্যাক্স ইনফ্রাসট্রাকচার চেয়ারম্যান গোলাম আলমগীর, মুক্তিযোদ্ধা সংসদ সন্তান কেন্দ্রীয় কমান্ড কাউন্সিলের মহাসচিব সরকার ফারহানা আকতার সুমি, জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক মমতাজুল হক প্রমুখ। 

অনুষ্ঠানে চিলাহাটি ও হলদিবাড়ি ট্রেন লাইন স্থাপন প্রকল্পের মাল্টিমিডিয়ার মাধ্যমে উপস্থাপন করেন ডোমার উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা উম্মে ফাতেমা। 

ঠিকাদার প্রতিষ্ঠানের চেয়ারম্যান অনুষ্ঠানে ঘোষণা দেন এই প্রকল্পের কাজ তিনি নির্ধারিত সময়ের এক মাস আগেই সমাপ্ত করে দিবেন।

সংশ্লিষ্ট সুত্র জানায়, চিলাহাটি রেলস্টেশন থেকে বর্ডার পর্যন্ত পৌণে সাত কিলোমিটার ব্রডগেজ রেলপথ নির্মাণে সরকারের ব্যয় হচ্ছে ৮০ কোটি ১৬লাখ ৯৪হাজার টাকা। এরপর চিলাহাটিতে তৈরী হবে আন্তর্জাতিক মানের রেলস্টেশন, অটো সিগন্যাল ব্যবস্থা, রেলকোয়ার্টার।

আগামী ২০২০ সালের  জুলাই’র মধ্যে কাজটি সম্পন্ন করা হবে।