মঙ্গলবার   ১৯ নভেম্বর ২০১৯   অগ্রাহায়ণ ৪ ১৪২৬   ২১ রবিউল আউয়াল ১৪৪১

রংপুর-৩ উপ-নিবার্চনঃ ভোট গ্রহণের সব প্রস্তুতি সম্পন্ন

– নীলফামারি বার্তা নিউজ ডেস্ক –

প্রকাশিত : ০৭:১৮ পিএম, ২ অক্টোবর ২০১৯ বুধবার

রংপুর-৩ আসনের উপ-নির্বাচনে ভোটগ্রহণের সব প্রস্তুতি সম্পন্ন করেছে জেলা রিটার্নিং অফিসার। ভোটগ্রহণকারী কর্মকর্তাদের দেওয়া হয়েছে প্রশিক্ষণ। সপ্তাহ জুড়ে মক ভোটিংয়ের মাধ্যমে সাধারণ ভোটারদের ইভিএম (ইলেকট্রনিক ভোটিং মেশিন) ব্যবহারের ধারণা দেওয়া হয়েছে।

শান্তিপূর্ণ পরিবেশে নির্বাচন সম্পন্ন করতে ভোটগ্রহণ কর্মকর্তাসহ আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীকেও দেওয়া হয়েছে নির্দেশনা। এখন শুধু অপেক্ষা ৫ অক্টোবরের।

রংপুর আঞ্চলিক নির্বাচন অফিস সূত্রে জানা গেছে, গুরুত্বপূর্ণ এ আসনটিতে গত সংসদ নির্বাচনের মত এবারও ১৭৫টি কেন্দ্রে ভোটের ব্যবস্থা করা হয়েছে। এর জন্য ১৭৫ জন প্রিজাইডিং অফিসার, সহকারী প্রিজাইডিং অফিসার ১০২৩ এবং ২০৪৬ জন পোলিং অফিসারকে প্রশিক্ষণ দেওয়া হয়েছে। ‘ঝুঁকিপূর্ণ’ (অধিক গুরুত্বপূর্ণ) ৪৯টি কেন্দ্রসহ মোট ১৭৫টি ভোটকেন্দ্রের ১০২৩টি গোপন কক্ষে ভোটগ্রহণ করা হবে।

রংপুর সেনানিবাস, রংপুর সদর উপজেলা এবং রংপুর সিটির ৩৩টি ওয়ার্ডের মধ্যে আটটি ওয়ার্ড ছাড়া বাকি সবগুলো নিয়ে রংপুর-৩ আসন। এ আসনে মোট ভোটার চার লাখ ৪১ হাজার ৫২৪ জন।

আচরণবিধি প্রতিপালন, আইনশৃঙ্খলা রক্ষা ও অপরাধ প্রতিরোধের জন্য রংপুর সদর ও সিটি করপোরেশন এলাকায় নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট দায়িত্ব পালন করছেন। ভোটগ্রহণের দিনও তারা মাঠে থাকবেন।

এছাড়াও প্রতিটি কেন্দ্রে নিরাপত্তা নিশ্চিত করতে আনসার-ভিডিপি, র‌্যাপিড অ্যাকশন ব্যাটালিয়ন (র‌্যাব), পুলিশ ও বর্ডার গার্ড বাংলাদেশের (বিজিবি) সদস্য মোতায়েন থাকবে। থাকবে সাদা পোশাকে গোয়েন্দা সংস্থার সদস্যরা এবং নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেটরা ভ্রাম্যমাণ আদালত পরিচালনা করবেন। 

এদিকে জাতীয় সংসদের-২১, রংপুর-৩ শূন্য আসনে নির্বাচনী তফসিল ঘোষণার পর সব প্রক্রিয়া শেষে নির্বাচনে ছয়জন প্রার্থী প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন। এর মধ্যে এরশাদের ভাতিজা সাবেক সংসদ সদস্য হোসেন মকবুল শাহরিয়ার আসিফ স্বতন্ত্র প্রার্থী হিসেবে মোটরগাড়ি প্রতীক নিয়ে লড়ছেন।

বাকি পাঁচ প্রার্থী দলীয় প্রতীক নিয়ে নির্বাচন করছেন। এর মধ্যে মহাজোটের প্রার্থী রাহগীর আল মাহি সাদ এরশাদ (প্রতীক-লাঙ্গল), বিএনপি প্রার্থী রিটা রহমান (প্রতীক-ধানের শীষ), এনপিপির শফিউল আলম (প্রতীক-আম), খেলাফত মজলিসের তৌহিদুর রহমান মন্ডল (প্রতীক-দেওয়াল ঘড়ি) এবং গণফ্রন্টের কাজী মো. শহীদুল্লাহ বায়েজীদ (প্রতীক-মাছ) নির্বাচন করছেন। এ ছয় প্রার্থীর মধ্যে ভোটারদের আলোচনায় রয়েছেন এরশাদ পরিবারের দুই প্রার্থী সাদ এরশাদ ও শাহরিয়ার আসিফ এবং বিএনপির রিটা রহমান।

এদিকে রংপুর আঞ্চলিক নির্বাচন কর্মকর্তা ও রিটার্নিং অফিসার জি এম সাহাতাব উদ্দিন উত্তরবাংলাকে বলেন, ‘ভোটগ্রহণের জন্য আমাদের সব ধরণের প্রস্তুতি রয়েছে। ভোটাররা যাতে নির্বিঘ্নে শান্তিপূর্ণ পরিবেশে কেন্দ্রে এসে ভোট দিতে পারেন, সেজন্য আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী সক্রিয় ভূমিকা পালন করবে। ভোটগ্রহণে বাধা সৃষ্টি, অপ্রীতিকর ঘটনার চেষ্টা বা ভোটারদের ভয়ভীতি দেখিয়ে কেউ ফায়দা লুটতে পারবে না।’ কেউ বিশৃংখলার চেষ্টা করলে সাথে সাথে তাকে আইনের আওতায় আনা হবে।