• বৃহস্পতিবার ২০ জুন ২০২৪ ||

  • আষাঢ় ৫ ১৪৩১

  • || ১২ জ্বিলহজ্জ ১৪৪৫

অসুস্থ ব্যক্তিকে দেখতে গিয়ে যে দোয়া করবেন

– নীলফামারি বার্তা নিউজ ডেস্ক –

প্রকাশিত: ২৭ আগস্ট ২০২৩  

এক মুসলিম ভাইয়ের ওপর আরেক মুসলিম ভাইয়ের একটি হক বা অধিকার হলো অসুস্থতার সময় তাকে দেখতে যাওয়া, তার খোঁজ-খবর নেওয়া ও তার সুস্থতার জন্য দোয়া করা।

দয়ার নবী রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম বলেছেন- حَقُّ المُسْلِمِ عَلَى المُسْلِمِ خَمْسٌ: رَدُّ السَّلاَمِ، وَعِيَادَةُ المَرِيضِ، وَاتِّبَاعُ الجَنَائِزِ، وَإِجَابَةُ الدَّعْوَةِ، وَتَشْمِيتُ العَاطِسِ

অর্থ: ‘এক মুসলিমের ওপর অপর মুসলিমের হক পাঁচটি: সালামের জবাব দেওয়া, অসুস্থ হলে দেখতে যাওয়া, তার জানাজার সঙ্গে যাওয়া, দাওয়াত কবুল করা এবং তার হাঁচির জবাব দেওয়া’। (সহিহ বুখারি: ১২৪০, সহিহ মুসলিম: ২১৬২)

অসুস্থ ব্যক্তিকে দেখতে যাওয়া অত্যন্ত ফজিলতপূর্ণ কাজ। আলী (রা.) বলেন, কেউ বিকেলে কোনো অসুস্থ ব্যক্তিকে দেখতে গেলে সত্তর হাজার ফেরেশতা তার সঙ্গে রওয়ানা হয়, তারা তার জন্য ভোর হওয়া পর্যন্ত ক্ষমা চাইতে থাকে এবং তার জন্য জান্নাতে একটি বাগান তৈরি করা হয়। কেউ সকালে কোনো অসুস্থ ব্যক্তিকে দেখতে গেলে তার সঙ্গেও সত্তর হাজার ফেরেশতা রওয়ানা হয়, তারা সন্ধ্যা হওয়া পর্যন্ত তার জন্য ক্ষমা প্রার্থনা করতে থাকে এবং তাকেও জান্নাতে একটি বাগান দেওয়া হয়। (সুনান আবু দাউদ)

আবু হোরায়রা (রা.) থেকে বর্ণিত একটি হাদিসে রাসুল (সা.) বলেছেন- مَنْ عَادَ مَرِيضًا أَوْ زَارَ أَخًا لَهُ فِي اللَّهِ نَادَاهُ مُنَادٍ أَنْ طِبْتَ وَطَابَ مَمْشَاكَ وَتَبَوَّأْتَ مِنَ الْجَنَّةِ مَنْزِلاً

অর্থ: ‘যে ব্যক্তি কোনো অসুস্থ ব্যক্তিকে দেখতে যায় বা আল্লাহর সন্তুষ্টির উদ্দেশ্যে তার কোনো দীনী ভাইয়ের সঙ্গে সাক্ষাৎ করে, তাকে একজন ফেরেশতা ডেকে বলতে থাকেন, মঙ্গলময় তোমার জীবন, মঙ্গলময় তোমার এই পথ চলা। তুমি তো জান্নাতে তোমার আবাস নির্ধারণ করে নিলে! (সুনান তিরিমিজি)

অসুস্থ ব্যক্তিকে দেখতে গিয়ে যেভাবে দোয়া করবেন

কোনো অসুস্থ ব্যক্তিকে দেখতে গেলে রাসূল (সা.) বলতেন- لاَ بَأْسَ طَهُورٌ إِنْ شَاءَ اللَّهُ ‏ 
‏  
অর্থ: ‘দুশ্চিন্তার কারণ নেই, ইনশাআল্লাহ! (পীড়াজনিত দুঃখ কষ্টের কারণে) গুনাহ থেকে তুমি পবিত্র হয়ে যাবে’। (সহিহ বুখারি: ৩৬১৬)

আয়েশা (রা.) বলেন, রাসূল (সা.) যখন কোনো রোগীর কাছে আসতেন অথবা তার কাছে যখন কোনো রোগীকে আনা হতো, তখন তিনি বলতেন- أَذْهِبِ الْبَاسَ رَبَّ النَّاسِ اشْفِ وَأَنْتَ الشَّافِي لاَ شِفَاءَ إِلاَّ شِفَاؤُكَ شِفَاءً لاَ يُغَادِرُ سَقَمًا

‘কষ্ট দূর করে দাও হে মানুষের রব! শেফা দান কর, তুমিই একমাত্র শেফাদানকারী। তোমার শেফা ব্যতীত অন্য কোনো শেফা নেই। এমন শেফা দান কর, যা সামান্য রোগকেও অবশিষ্ট না রাখে’। (সহিহ বুখারি: ৫৬৭৫)

আত্মীয়স্বজন, সহকর্মী বন্ধুবান্ধব অসুস্থ হলে তাদের খোঁজখবর নিন, তাদের দেখতে যান এবং এভাবে তাদের জন্য দোয়া করুন। আল্লাহ অসুস্থতা দূর করে দেবেন এবং অসুস্থ ব্যক্তিকে দেখতে যাওয়ার অপরিসীম সওয়াব আপনাকেও দান করবেন ইনশাআল্লাহ!

ইয়া আল্লাহ! অসুস্থ ব্যক্তিকে দেখতে গিয়ে উল্লেখিত দোয়াগুলো সহি-শুদ্ধ ভাবে আমল করার তাওফিক দান করুন। আমিন।