• সোমবার ২০ মে ২০২৪ ||

  • জ্যৈষ্ঠ ৬ ১৪৩১

  • || ১১ জ্বিলকদ ১৪৪৫

যে কারণে ভয়েস কল-ইন্টারনেট সেবা বিঘ্নিত

– নীলফামারি বার্তা নিউজ ডেস্ক –

প্রকাশিত: ২৭ অক্টোবর ২০২৩  

রাজধানীর মহাখালীর খাজা টাওয়ারে অগ্নিকাণ্ডে মহাখালী ও এর আশপাশের এলাকায় ইন্টারনেট সেবা ব্যাহত হচ্ছে। আগুনের পরপরই ভবনটিতে থাকা ইন্টারনেট সার্ভার বন্ধ হয়ে যায়। এর ফলে ঢাকা শহরে ইন্টারনেট সেবা কখনো আসছে, আবার কখনো বন্ধ হয়ে যাচ্ছে।

আগুনে ইন্টারনেট সেবার এমন দশার কারণ জানিয়েছেন ডাক ও টেলিযোগাযোগমন্ত্রী মোস্তাফা জব্বার।

বৃহস্পতিবার রাতে নিজের ভেরিফায়েড ফেসবুক পেজে মন্ত্রী জানান, মহাখালীর আগুনে ২টি বিদেশি ও দেশি ভয়েস কল নির্ধারিত অপারেটরে সংযুক্ত করার প্রযুক্তি সেবা প্রতিষ্ঠান আইসিএক্স, ৮টি ইন্টারন্যাশনাল ইন্টারনেট গেটওয়ে (আইআইজি) প্রতিষ্ঠান, ২৫টি ইন্টারনেট সার্ভিস প্রোভাইডার (আইএসপি) প্রতিষ্ঠান সরাসরি এবং ৫০০ আইএসপি পরোক্ষভাবে ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে।

এদিকে, এ বিষয়ে ইন্টারনেট সার্ভিস প্রোভাইডার অ্যাসোসিয়েশনের (আইএসপিএবি) সভাপতি ইমদাদুল হক বলেন, মহাখালীতে আগুনের কারণে ব্রডব্যান্ড ইন্টারনেট সেবা বন্ধ হয়ে যাচ্ছে। কারণ খাজা টাওয়ারে ট্রান্সমিশন রয়েছে। দুটি ডাটা সেন্টার রয়েছে। যার ফলে অনেক স্থানে ইন্টারনেট অলরেডি বন্ধ হয়ে গেছে।

তিনি আরো বলেন, টাওয়ারে আগুনের কারণে অন্তত ৪০ শতাংশ প্রতিষ্ঠানের ইন্টারনেট সেবা বন্ধ হয়ে গেছে। এনআরবি নামে একটি ডাটা সেন্টার পুড়ে গেছে। কয়েকটি আইআইজি (ইন্টারন্যাশনাল ইন্টারনেট গেটওয়ে) শাটডাউন করেছে। এছাড়া আরও অনেক সেবাদাতার সেবা বন্ধের মুখে। এতে শুধু ঢাকা নয়, সারাদেশে ইন্টারনেটে ধীরগতি হচ্ছে।

এ অগ্নিকাণ্ডে একই সমস্যায় পড়েছে টেলিকম কোম্পানিগুলোও। ফেসবুক পেজে এক পোস্টে গ্রামীণফোন জানিয়েছে, মহাখালীর আমতলীতে অগ্নিকাণ্ডের কারণে কারিগরি বিপর্যয়ে কিছু গ্রাহকের গ্রামীণফোন থেকে অন্য অপারেটরে ভয়েস কলজনিত সাময়িক অসুবিধা হতে পারে। আমাদের টিম দ্রুততার সঙ্গে সমস্যাটি সমাধানে কাজ করে যাচ্ছে। সাময়িক এ অসুবিধার জন্য আমরা দুঃখিত।

আরেক টেলিকম কোম্পানি বাংলালিংক এক পোস্টে জানিয়েছে, মহাখালীর অগ্নিকাণ্ডে কারিগরি বিপর্যয়ে কিছু গ্রাহকের বাংলালিংক থেকে অন্য অপারেটরে কল এবং এসএমএস করতে সাময়িক অসুবিধা হতে পারে। সমস্যাটি সমাধানে কাজ করে যাচ্ছি। সাময়িক এই অসুবিধার জন্য আমরা দুঃখিত।

বৃহস্পতিবার বিকেল ৫টার দিকে মহাখালীর আমতলীর ১৪তলা খাজা টাওয়ারে আগুন লাগে। সাড়ে ৬ ঘণ্টা পর রাত সাড়ে ১১টার দিকে আগুন নিয়ন্ত্রণে আনে ফায়ার সার্ভিসের ১২টি ইউনিট। এ অগ্নিকাণ্ডে এখন পর্যন্ত তিনজনের মরদেহ উদ্ধার করা হয়েছে।