• বৃহস্পতিবার   ০২ ফেব্রুয়ারি ২০২৩ ||

  • মাঘ ১৯ ১৪২৯

  • || ০৯ রজব ১৪৪৪

সর্বশেষ:
ফিলিস্তিনিদের পাশে দাঁড়াতে মুসলিমদের প্রতি প্রধানমন্ত্রীর আহ্বান সংখ্যালঘু বলতে কোনো শব্দ নেই, আমরা সবাই বাঙালি: ধর্ম প্রতিমন্ত্রী আইএমএফের ঋণই প্রমাণ করে দেশের অর্থনীতির ভিত্তি মজবুত: অর্থমন্ত্রী করোনা মহামারির মধ্যেও বাংলাদেশের অর্থনীতি ৩.৮% প্রসারিত হয়েছে শিক্ষা নিয়ে ব্যবসা করার মানসিকতা পরিহার করার আহ্বান রাষ্ট্রপতির

প্রথম জয়ের লক্ষ্যে আজ শ্রীলংকার মুখোমুখি অস্ট্রেলিয়া

– নীলফামারি বার্তা নিউজ ডেস্ক –

প্রকাশিত: ২৫ অক্টোবর ২০২২  

নিউজিল্যান্ডের কাছে নিজেদের প্রথম ম্যাচে হার দিয়ে টি-২০ বিশ্বকাপ শুরু করেছে বর্তমান চ্যাম্পিয়ন অস্ট্রেলিয়া। প্রথম ম্যাচে হারের পর আজ সুপার টুয়েলভে নিজেদের দ্বিতীয় ম্যাচে শ্রীলংকার মুখোমুখি হবে স্বাগতিকরা। তাই ভাল ক্রিকেট খেলে এবারের আসরে প্রথম জয় তুলে নিতে লংকানদের বিপক্ষে মরিয়া অজিরা।

পক্ষান্তরে দাপুটে জয়ে সুপার টুয়েলভ শুরু করা শ্রীলংকার লক্ষ্য মঅস্ট্রেলিয়াকে হারিয়ে টানা দ্বিতীয় জয় তুলে নেয়া।

পার্থ স্টেডিয়ামে বাংলাদেশ সময় বিকেল ৫টায় শুরু হবে অস্ট্রেলিয়া-শ্রীলংকার ম্যাচ।

গত টি-২০ বিশ্ব কাপের ফাইনালে নিউজিল্যান্ডকে হারিয়ে শিরোপা জিতেছিলো অজিরা। এবারের বিশ্বকাপের সুপার টুয়েলভের উদ্বোধনী ম্যাচে মুখোমুখি হয়েছিল গত আসরের দুই ফাইনালিস্টের। ম্যাচে গত আসরের ফাইনাল হারের প্রতিশোধ বিশ্ব মঞ্চেই নিয়ে নেয় নিউজিল্যান্ড।

সুপার টুয়েলভের প্রথম ম্যাচে অস্ট্রেলিয়াকে ৮৯ রানে হারিয়ে দেয় নিউজিল্যান্ড। নিজেদের টি-২০তে অস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষে সর্বোচ্চ বড় ব্যবধানে জয়ের স্বাদ ব্লাকক্যাপসরা।

নিউজিল্যান্ডের বিপক্ষে নিজেদের প্রথম ম্যাচে ব্যাটি-বোলিং সব বিভাগেই ব্যর্থ হয় অস্ট্রেলিয়া। নিউজিল্যান্ডের ব্যাটারদের সামনে অসহায় আত্মসমর্পণ করে অজি বোলাররা। মিচেল স্টার্ক-জশ হ্যাজেলউড-প্যাট কামিন্সদের ব্যর্থতার দিনে রানের পাহাড় গড়ে নিউজিল্যান্ড। ওপেনার ডেভন কনওয়ের অনবদ্য ৯২ রানের কল্যাণে ২০ ওভারে ৩ উইকেটে ২০০ রানের বড় সংগ্রহ পায় নিউজিল্যান্ড।

বোলারদের ব্যর্থতার সাথে অস্ট্রেলিয়ার ব্যাটাররাও নিজেদের মেলে ধরতে পারেনি। ১৭ বল বাকী থাকতে ১১১ রানে গুটিয়ে যায় অসিরা। দলের পক্ষে সর্বোচ্চ ২৮ রান করেন ফর্মহীনতায় ভুগতে থাকা গ্লেন ম্যাক্সওয়েল।

তবে প্রথম ম্যাচে হারের স্মৃতি ভুলে গিয়ে নতুনভাবে পথ চলতে চান অস্ট্রেলিয়ার অধিনায়ক অ্যারন ফিঞ্চ। 

তিনি বলেন, প্রথম ম্যাচে আমাদের অনেক ভুল ছিলো। পরিকল্পনা অনুযায়ী কোন কিছুই হয়নি। বোলাররা ভালো করতে পারেনি। ব্যাটররা বড় ইনিংস খেলতে ব্যর্থ হয়েছে। তবে এসব ভুলে নতুনভাবে সবকিছু শুরু করতে চাই আমরা। সবকিছু এখনও শেষ হয়ে যায়নি। এই পর্বে আরও চারটি ম্যাচ রয়েছে। এখন থেকেই সর্তক হতে হবে আমাদের।

এ দিকে প্রথম রাউন্ডে নামিবিয়ার মত পুঁচকে দলের কাছে হার দিয়ে এবারের বিশ্বকাপ শুরু করে শ্রীলংকা। এরপর গ্রুপ পর্বের শেষ দুই ম্যাচ জিতে ঠিকই সুপার টুয়েলভে জায়গা করে নেয় গেল মাসে এশিয়া কাপ জয় করা লংকানরা।

সুপার টুয়েলভে আর ভুল করেনি শ্রীলংকা। বোলারদের নৈপুন্যে আয়ারল্যান্ডের বিপক্ষে ৯ উইকেটের বড় জয় পায় উপমহাদেশের দল শ্রীলংকা।

শ্রীলংকার বোলিং দাপটে ২০ ওভারে ৮ উইকেটে ১২৮ রানের বেশি করতে পারেনি আয়ারল্যান্ড। ১২৯ রাানের টার্গেট স্পর্শ করতে মোটেই বেগ হয়নি শ্রীলংকাকে। ওপেনার কুশল মেন্ডিস ৪৩ বলে ৬৮ রানের অপরাজিত ইনিংস খেলে ১৫তম ওভারের মধ্যে দলের জয় নিশ্চিত করেন।

সুপার টুয়েলভে দুর্দান্ত শুরুতে আত্মবিশ্বাসী শ্রীলংকা এবার স্বাগতিক অস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষেও জয় তুলে নিতে চায়। 

অধিনায়ক দাসুন শানাকা বলেন, আমরা জয়ের ধারায় আছি। এই মোমেন্টামটা ধরে রাখতে চাই। নিজেদের কন্ডিশনে অস্ট্রেলিয়া শক্তিশালী দল। তারপরও অজিদের হারানোর সামর্থ্য আমাদের আছে।

এখন পর্যন্ত টি-২০তে ২৫ ম্যাচে  মুখোমুখি হয়েছে অস্ট্রেলিয়া ও শ্রীলংকা। জয়ের পাল্লা ভারী অস্ট্রেলিয়ার দিকে। অজিদের জয় ১৪টি। শ্রীলংকার জয় ১০টিতে। ১টি ম্যাচ টাই হয়। টাই হওয়া ম্যাচটি সুপার ওভারে জিতেছিলো অস্ট্রেলিয়া।

সর্বশেষ গত জুনে টি-২০তে মুখোমুখি হয়েছিলো অস্ট্রেলিয়া-শ্রীলংকা। শ্রীলংকার মাটিতে তিন ম্যাচের টি-২০ সিরিজ ২-১ ব্যবধানে জিতেছিলো অস্ট্রেলিয়া।

অস্ট্রেলিয়া দল : অ্যারন ফিঞ্চ (অধিনায়ক), অ্যাস্টন অ্যাগার, প্যাট কামিন্স, টিম ডেভিড, জশ হ্যাজেলউড, ক্যামেরুন গ্রিন, মিচেল মার্শ, গ্লেন ম্যাক্সওয়েল, কেন রিচার্ডসন, স্টিভ স্মিথ, মিচেল স্টার্ক, মার্কুস স্টয়িনিস, ম্যাথু ওয়েড, ডেভিড ওয়ার্নার ও এডাম জাম্পা।

শ্রীলংকা দল : দাসুন শানাকা (অধিনায়ক), দানুশকা গুনাথিলাকা, পাথুম নিশাঙ্কা, কুশল মেন্ডিস, চারিথ আসালঙ্কা, হাসারাঙ্গা ডি সিলভা, ভানুকা রাজাপাকসে, ধনঞ্জয়া ডি সিলভা, মাহেশ থিকশানা, জেফরি ভান্ডারসে, চামিকা করুণারত্নে, দুশমন্থ চামিরা, লাহিরু কুমারা, বিনুরা ফার্নান্দো এবং প্রমোদ মাদুশান।