• বৃহস্পতিবার   ০২ ফেব্রুয়ারি ২০২৩ ||

  • মাঘ ১৯ ১৪২৯

  • || ০৯ রজব ১৪৪৪

সর্বশেষ:
ফিলিস্তিনিদের পাশে দাঁড়াতে মুসলিমদের প্রতি প্রধানমন্ত্রীর আহ্বান সংখ্যালঘু বলতে কোনো শব্দ নেই, আমরা সবাই বাঙালি: ধর্ম প্রতিমন্ত্রী আইএমএফের ঋণই প্রমাণ করে দেশের অর্থনীতির ভিত্তি মজবুত: অর্থমন্ত্রী করোনা মহামারির মধ্যেও বাংলাদেশের অর্থনীতি ৩.৮% প্রসারিত হয়েছে শিক্ষা নিয়ে ব্যবসা করার মানসিকতা পরিহার করার আহ্বান রাষ্ট্রপতির

ইংলিশদের ট্রাম্পকার্ড হতে পারেন মঈন আলী

– নীলফামারি বার্তা নিউজ ডেস্ক –

প্রকাশিত: ২৮ অক্টোবর ২০২২  

অস্ট্রেলিয়ার মাটিতে চলছে টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপের দামামা। বিশ্বের সীমিত সংস্করণের মহাযুদ্ধে এরমধ্যে বাঁক পেয়েছে অন্য এক মাত্রা। কুড়ি ওভারের ক্রিকেট মানেই যেন ম্যাচের বাঁকে বাঁকে উত্তেজনার বারুদ ঠাসা। তারমধ্যে বৃষ্টি দিচ্ছে সে বারুদে পানি। তারপরও স্ব-মহিমায় এগিয়ে যাচ্ছে ৬-৪ এর বাদাম।    

প্রতিটি দলই প্রস্তুত নিজেদের মেলে ধরতে। তারমধ্যে এমন দু-একজন আছেন যিনি ব্যাটিং, বোলিং কিংবা ফিল্ডিংয়ে সেই উত্তেজনার বারুদ উস্কে দিতে পারেন। 

বিশ্বকাপের মূলপর্বে সরাসরি স্থান করে নেওয়া আটটি দলের সেইসব ট্রাম্পকার্ড খেলোয়াড়দের নিয়েই ডেইলি বাংলাদেশ- এর বিশেষ আয়োজন। 

আজ থাকছে বিশ্বকাপের অন্যতম ফেভারিট দল ইংল্যান্ডের তিন বিভাগের সেরাদের আদ্যোপান্ত।

এবারের আসরে ফেভারিট দলগুলোর মধ্যে শীর্ষে থাকবে ইংল্যান্ডের নাম। যাদের মূল শক্তি হলো তাদের অলরাউন্ডাররা। তাই বলে ব্যাটিং কিংবা বোলিং বিভাগকে পিছিয়ে রাখার কোন কারণ নেই। এই বিভাগে ইংলিশদের রয়েছে মোক্ষম অস্ত্র। তাতে যে কেউ মুহূর্তেই ঘায়েল হতে পারে। 

ইংল্যান্ডের ব্যাটিংয়ের দিকে তাকালে সবার আগে চোখে পড়বে আলেক্স হেলস। দীর্ঘদেহী এই ওপেনার অবশ্য শুরুতে বিশ্বকাপ দলেই ছিলেন না। সুযোগ আসে দলের সেরা ব্যাটার জনি বেয়ারস্টোর কল্যাণে। 

সুযোগটা কাজে লাগাতে গিয়ে হেলস হয়ে উঠতে পারেন ধ্বংসাত্মক। জশ বাটলার কিংবা ডেভিড মালানরাও যে ব্যাট হাতে ঝড় তুলবেন, সেটা অনুমেয়।

ইংল্যান্ডের বোলিং লাইনআপ নিয়ে বলতে গেলে প্রথমেই এসে দাঁড়াবেন মার্ক উড। ইনজুরি থেকে ফিরে গতিতে প্রতিপক্ষকে নাজেহাল করে ফেলেছেন উড। 

স্বাভাবিকভাবেই বিশ্বকাপে ইংলিশদের বোলিং আক্রমণে মার্ক উড হয়ে উঠবেন প্রতিপক্ষের কাছে আতঙ্কের নাম।

ফিল্ডিংয়ের দিক দিয়ে উপমহাদেশের বাইরের দলগুলো বারবারই দুর্দান্ত। এদের মধ্যে ইংল্যান্ড বাকিদের চেয়ে এগিয়ে। বিশ্বমানের ফিল্ডিং যাকে বলে। বর্তমান সময়ের সেরা ফিল্ডারদের তালিকা করা হলে উপরের দিকেই থাকবে বেন স্টোকস। 

উড়ে আসা বল এক হাতে আটকানোর তার যে ক্ষিপ্রতা আর দক্ষতা, তাতে উড়ে যেতে পারে প্রতিপক্ষের জয়ের সকল আশা ভরসা।

মঈন আলীর নাম বলা হয়নি। ইংল্যান্ডের বর্তমান দলটার নিউক্লিয়াস বলা যায় তাকে। বিপদের সময় দলের হাল ধরা কিংবা বোলিংয়ে ব্রেকথ্রু এনে দেয়াতে এই অলরাউন্ডারের জুড়ি মেলা ভার। 

সব ছাপিয়ে মঈন আলী হয়ে উঠতে পারেন অধিনায়কের ট্রাম্পকার্ড। যাকে দিয়ে বাজিটা লাগালেই ওয়ানডের পর এবার কুড়ি ওভারের আসরেও জয়োল্লাস করতে পারে ক্রিকেটের জনকরা।