• শনিবার ১৩ জুলাই ২০২৪ ||

  • আষাঢ় ২৮ ১৪৩১

  • || ০৫ মুহররম ১৪৪৬

তীব্র লড়াইয়ে বাখমুত থেকে পিছু হটার ইঙ্গিত ইউক্রেন বাহিনীর

– নীলফামারি বার্তা নিউজ ডেস্ক –

প্রকাশিত: ২ মার্চ ২০২৩  

যুদ্ধবিধ্বস্ত দোনেৎস্কের বাখমুত শহর থেকে পিছু হটার ইঙ্গিত দিয়েছে ইউক্রেনীয় বাহিনী। কয়েক মাস ধরে বাখমুতে রাশিয়া ও ইউক্রেনীয় সেনাদের মধ্যে তীব্র লড়াই হচ্ছে। তবে গত দুই সপ্তাহে রুশ বাহিনীর হামলার তীব্রতা এতটাই বেড়েছে যে, সেখান থেকে এখন কৌশলগত কারণে পিছু হটার পরিকল্পনা করছে ইউক্রেনের সেনারা।

বুধবার প্রেসিডেন্ট ভলোদিমির জেলেনস্কির উপদেষ্টা আলেক্সান্ডার রোদনেয়ানস্কি যুক্তরাষ্ট্রের সংবাদমাধ্যম সিএনএনকে এমন ইঙ্গিত দিয়েছেন। খবর এবিসির। তিনি বলেন, যদি প্রয়োজন হয় তাহলে ইউক্রেনীয় সেনারা সেখান থেকে সরে যাবেন।

জেলেনস্কির অর্থনীতি বিষয়ক এ উপদেষ্টা বলেন, আমাদের সেনাবাহিনী অবশ্যই সব বিকল্প বিবেচনা করবে। তারা এখন পর্যন্ত শহরের নিয়ন্ত্রণ ধরে রেখেছে, কিন্তু যদি প্রয়োজন হয়, তাহলে কৌশলগত কারণে তারা সরে যাবে। আমরা কোনো কারণ ছাড়া আমাদের সব সেনাকে বলি দিতে পারব না।

বাখমুত শহরটি দোনেৎস্কে অবস্থিত। গত বছর রাশিয়ার প্রেসিডেন্ট ভ্লাদিমির পুতিন ইউক্রেনের যে চারটি অঞ্চল অধিগ্রহণ করেন, এর মধ্যে দোনেৎস্ক একটি। বর্তমানে দোনেৎস্কের অর্ধেক অঞ্চলের নিয়ন্ত্রণ রয়েছে রুশ সেনাদের হাতে। পুরো নিয়ন্ত্রণ নিতে হলে তাদের অবশ্যই বাখমুত দখল করতে হবে। এরপর দোনেৎস্কের অন্য শহরগুলোর দখলও নিতে পারবে তারা।

এদিকে ইউক্রেনের উচ্চপদস্থ কর্মকর্তা বাখমুত থেকে সরে যাওয়ার ইঙ্গিত দিলেও রাশিয়ার ভাড়াটে সেনাবাহিনী ওয়াগনার গ্রুপের প্রতিষ্ঠাতা ইয়েভগিনি প্রিগোজিন দাবি করেছেন, বাখমুতে আরো শক্তিশালী প্রতিরোধ গড়ে তুলেছে ইউক্রেন। তিনি জানিয়েছেন, শহরটিতে নতুন করে আরো কয়েক হাজার সেনা পাঠিয়েছেন ইউক্রেনের কমান্ডাররা।

তবে ওলেহ ঝানোভ নামে ইউক্রেনের এক সেনা বিশ্লেষক জানিয়েছেন, বাখমুতে আরো সেনা পাঠানো হয়েছে মূলত ‘সময়ক্ষেপণের’ জন্য। কারণ রুশ বাহিনীকে আটকে রেখে বাখমুত থেকে ১৫ কিলোমিটার পশ্চিমের অঞ্চল চাসিভ ইয়ারের একটি পাহাড়ে ইউক্রেনীয় সেনাদের ফায়ারিং লাইন শক্তিশালী করা হবে।

ঝানোভ আরো জানিয়েছেন, বাখমুত থেকে ইউক্রেনীয় সেনারা সরে গেলেও যুদ্ধের মোড় ঘুরে যাওয়ার মতো কিছু হবে না।

এ সেনা বিশ্লেষক জানিয়েছেন, বর্তমানে বাখমুতের রাস্তা-ঘাট, সেনা অবস্থানসহ সবকিছু রুশ সেনাদের ফায়ারিং দূরত্বের মধ্যে রয়েছে। এছাড়া শহরটি প্রায় ধসিয়ে দিয়েছে রুশ বাহিনী। ফলে এখানে থেকে আপাতত কোনো লাভ নেই।