• শুক্রবার ১৯ জুলাই ২০২৪ ||

  • শ্রাবণ ৩ ১৪৩১

  • || ১১ মুহররম ১৪৪৬

সর্বশেষ:
সর্বোচ্চ আদালতের রায়ই আইন হিসেবে গণ্য হবে: জনপ্রশাসনমন্ত্রী। ২৫ জুলাই পর্যন্ত এইচএসসির সব পরীক্ষা স্থগিত।

আমের আচার বানানোর নিয়ম, নষ্ট হবে না এক বছরেও

– নীলফামারি বার্তা নিউজ ডেস্ক –

প্রকাশিত: ১৩ মে ২০২৩  

আচার দেখলেই যেন জিভে জল চলে আসে! বিশেষ করে যদি সেই আচার আমের আচার হয় তাহলে তো‌ কোনো কথাই নেই। তবে এখন আর বাজার থেকে আচার কেনার কোনো দরকার নেই। কারণ বাড়িতেই খুব সহজে বানিয়ে নেয়া যায় সুস্বাদু আমের আচার।

এই গরমে বাড়িতে আমের আচার বানানোর পদ্ধতি দেওয়া হলো-

বাড়িতে আমের আচার বানানোর উপকরণ

বাড়িতে আমের আচার বানানোর জন্য পরিমাণ মতো কাঁচা আম নিয়ে নিতে হবে। এছাড়াও লাগবে ২০০ গ্রাম সরিষার তেল, পরিমাণ মতো লবণ, হলুদ, শুকনো মরিচের গুঁড়ো, আস্ত শুকনো মরিচ, হলুদ গুঁড়ো, কালো জিরা, কালো সরিষা, কাঁচা মরিচ, মৌরী, মেথি, ভিনিগার, জোয়ান, বিট লবণ।

বাড়িতে আমের আচার বানানোর পদ্ধতি

প্রথমে আমগুলো ভালো করে ধুয়ে নিতে হবে। তারপর সেই ধোয়া আমগুলো ভালো করে কাপড় দিয়ে মুছে ফেলতে হবে। মোছার পর টুকরো টুকরো করে কেটে নিতে হবে। এবার এই টুকরো করে রাখা আমের মধ্যে দু-চামচ লবণ দিতে হবে। তারপর দুই চামচ হলুদ গুঁড়ো দিতে হবে। এবার লবণ ও হলুদ ভালো করে মিশিয়ে নেওয়ার পর ৬ থেকে ৭ ঘণ্টা রোদে রেখে দিতে হবে।

এবার আচারের মশলার জন্য কড়াইতে শুকনো মরিচ দিয়ে নিতে হবে। তারপর মেথি দিতে হবে। কিছুক্ষণ পর মৌরী দিতে হবে। তারপর জিরে দিতে হবে। একদম শেষে দিতে হবে সরিষা। মশলা ভাজা হয়ে গেলে ভালো করে গুঁড়ো করে নিতে হবে। এবার কড়াইতে ২০০ গ্রাম সরিষার তেল গরম করে নিতে হবে।

গরম তেল কড়াই থেকে নামিয়ে একটা পাত্রে রাখতে হবে। তারপর ঐ তেলের সঙ্গে ৩ চামচ কালো জিরে মিশিয়ে নিতে হবে এবং ২ চামচ জোয়ান মিশিয়ে নিতে হবে। এবার ভাজা মশলাটা এবং ৫ চামচ বিট লবণ মিশিয়ে নিতে হবে ঐ তেলের সঙ্গে। তারপর ২ চামচ কাশ্মীরি মরিচের গুঁড়ো মিশিয়ে নিতে হবে। শেষে ভিনিগার মিশিয়ে নিতে হবে।

এভাবে মশলা তৈরি হয় গেলে তার সঙ্গে রোদে শুকিয়ে রাখা আমের টুকরোগুলো দিতে হবে। মশলার সঙ্গে আমের টুকরোগুলো ভালো করে মিশিয়ে নিতে হবে। এবার লম্বালম্বি ভাবে মুখ চিড়ে রাখা কাঁচা মরিচ মিশিয়ে নিতে হবে এই আমের টুকরোগুলোর সঙ্গে। কিন্তু এখনই এই আচার খাওয়া যাবে না। প্রথমে কাঁচের বয়ামে এই আচারটা রেখে দুই দিন রোদে রেখে দিতে হবে। এভাবে রাখলে আচার কখনও নষ্ট হবে না।