• বৃহস্পতিবার   ০২ ফেব্রুয়ারি ২০২৩ ||

  • মাঘ ১৯ ১৪২৯

  • || ০৯ রজব ১৪৪৪

সর্বশেষ:
ফিলিস্তিনিদের পাশে দাঁড়াতে মুসলিমদের প্রতি প্রধানমন্ত্রীর আহ্বান সংখ্যালঘু বলতে কোনো শব্দ নেই, আমরা সবাই বাঙালি: ধর্ম প্রতিমন্ত্রী আইএমএফের ঋণই প্রমাণ করে দেশের অর্থনীতির ভিত্তি মজবুত: অর্থমন্ত্রী করোনা মহামারির মধ্যেও বাংলাদেশের অর্থনীতি ৩.৮% প্রসারিত হয়েছে শিক্ষা নিয়ে ব্যবসা করার মানসিকতা পরিহার করার আহ্বান রাষ্ট্রপতির

তেঁতুলিয়ায় সর্বনিম্ন তাপমাত্রার রেকর্ড

– নীলফামারি বার্তা নিউজ ডেস্ক –

প্রকাশিত: ৮ ডিসেম্বর ২০২২  

কয়েক দিন ধরেই তাপমাত্রা উঠা নামা করছে পঞ্চগড়ে। উত্তর দিক থেকে বয়ে আসা হিমালয়ের হিমেল হাওয়া ও কুয়াশা ঢাকা পড়ে আশপাশ। ফলে দিন দিন বৃদ্ধি পাচ্ছে এ জেলায় শীতের তীব্রতা। 

বৃহস্পতিবার সকাল ৯ টায় পঞ্চগড়ের তেঁতুলিয়া আবহাওয়া পর্যবেক্ষণ কেন্দ্রে সর্বনিম্ন তাপমাত্রা রেকর্ড করা হয় ১২ দশমিক ২ ডিগ্রি সেলসিয়াস। যা সারা দেশের মধ্যে সর্বনিম্ন তাপমাত্রা বলে নিশ্চিত করেছেন তেঁতুলিয়া আবহাওয়া পর্যবেক্ষণ কেন্দ্রের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা রাসেল শাহ। 

সরেজমিন দেখা যায়, সন্ধ্যা হলেই জেলার ওপর দিয়ে বয়ে যাচ্ছে হিমেল হাওয়া সঙ্গে ঢেকে যাচ্ছে কুয়াশায়। মধ্যরাত থেকে পড়তে শুরু করে শিশির বিন্দু ফলে শীতের সঙ্গে কুয়াশায় ঢেকে থাকছে চারপাশ সকাল পর্যন্ত। আবার বেলা বাড়ার সঙ্গে সঙ্গে সূর্যের আলো দেখা যাচ্ছে সারাদিন থাকছে রোদ্রের সঙ্গে গরম। 

অন্যদিকে গত কয়েকদিন থেকে শীত অনুভূত হওয়ার কারণে গরম কাপড় পড়ে বাইরে বের হচ্ছে মানুষরা। বিভিন্ন হাট-বাজারগুলোতে জমে উঠতে শুরু করেছে গরমের নতুন কাপড়ের দোকানগুলো। পাশাপাশি বিভিন্ন বাজারে ফুটপাতে জমে উঠতে শুরু করছে পুরাতন গরম কাপড়ের দোকানসমূহ। তবে বিগত বছরের তুলনায় এবার  শীতবস্ত্রের দাম কয়েকগুণ বৃদ্ধি পেয়েছে। 

এদিকে আবহাওয়া অফিস বলছে, পঞ্চগড় থেকে নিকটবর্তী অবস্থান হিমালয়ের। ফলে উত্তর দিক থেকে বয়ে আসা হিমালয়ের হিম বায়ুর কারণে প্রতিবছর এখানে তাপমাত্রা হ্রাস পায় এবং শীতের প্রকোপ বেশি থাকে। তবে গত কয়েকদিন থেকে তাপমাত্রা উঠানামা কারণে কিছুটা শীতের তীব্রতা বৃদ্ধি পাচ্ছে। এ মাসের শেষের দিকে তাপমাত্রা আরো হ্রাস পাবে বলে জানিয়েছে আবহাওয়া অফিস। 

জেলার তেঁতুলিয়া উপজেলার সদর ইউপির ডাঙ্গা পাড়া গ্রামের বাসিন্দা জয়নাল আবেদীন বলেন, গত কয়েকদিন থেকে শীত বেশি। শীত ও কুয়াশা পড়ছে সন্ধ্যার পর পরই একই অবস্থা দেখা দিচ্ছে। ফলে আমাদের গরম কাপড় পড়ে বাইরে বের হতে হচ্ছে। 

পঞ্চগড় জেলা শহরের বাসিন্দা আশরাফ আলী বলেন, আমরা গরিব মানুষ শীতকালে আমাদের অনেক কষ্ট হয়। নতুন কাপড় কেনার মতো সামর্থ্য নেই, তাই ফুটপাতে পুরাতন কাপড় কিনতে এসেছি কিন্তু দাম বেশি হওয়ার কারণে নিতে না পারায় বাড়িতে ফিরে যাচ্ছি। সরকারি এতো অনুদান ও শীতবস্ত্র আসে কিন্তু আমাদের কপালে জুটছে না।

তেঁতুলিয়া চৌরাস্তা বাজারের ব্যবসায়ী ইকবাল হোসেন বলেন, গত বছরের চেয়ে এবার এ শীতের কাপড়ের বেচা বিক্রি কম হচ্ছে। তবে দিনদিন বিক্রির পরিমাণ বৃদ্ধি পাচ্ছে। আমরা চেষ্টা করছি ক্রেতাদের কম দামে কাপড় বিক্রি করার কিন্তু বিগত বছরের তুলনায় এবার কাপড়ের দাম অনেকটা বৃদ্ধি পেয়েছে। 

তেঁতুলিয়া আবহাওয়া পর্যবেক্ষণ ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা রাসেল শাহ বলেন, বুধবার সকাল ৯ টায় তেঁতুলিয়ায় সর্বনিম্ন তাপমাত্রা রেকর্ড করা হয় ১২ দশমিক ২ ডিগ্রি সেলসিয়াস। যা সারা দেশের মধ্যে সর্বনিম্ন তাপমাত্রা। তবে আগামী কয়েকদিনের মধ্যে তাপমাত্রা হ্রাস পাবে এবং শীতের প্রকোপ বৃদ্ধি পাবে।