• শনিবার   ১৩ আগস্ট ২০২২ ||

  • শ্রাবণ ২৯ ১৪২৯

  • || ১৪ মুহররম ১৪৪৪

সর্বশেষ:
পঞ্চগড়ে পাঁচ হাজার গাছ কেটে ফেলেছে দুর্বৃত্তরা তিনমাস পর হারানো মোবাইল উদ্ধার করে ফিরিয়ে দিল পুলিশ এসডিজি অর্জনে সংসদ সদস্যদের ভূমিকা গুরুত্বপূর্ণ: স্পিকার বৈধ পথে রেমিট্যান্স পাঠাতে সৌদি প্রবাসীদের প্রতি আহ্বান পদ্মা সেতু চালুর পর দর্শনার্থীতে মুখর বঙ্গবন্ধুর সমাধিসৌধ

`হার্ডিঞ্জ ব্রিজের তুলনায় পদ্মাসেতুতে ৫০ হাজার কোটি টাকা সাশ্রয়` 

– নীলফামারি বার্তা নিউজ ডেস্ক –

প্রকাশিত: ২৮ জুন ২০২২  

তথ্য ও সম্প্রচার মন্ত্রী ড. হাছান মাহমুদ বলেছেন, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা পদ্মাসেতু নির্মাণ করতে গিয়ে হার্ডিঞ্জ ব্রিজের তুলনায় ৩০ থেকে ৫০ হাজার কোটি টাকা সাশ্রয় করেছেন। জাতীয় সংসদে সোমবার ২০২২-২৩ অর্থ বছরের প্রস্তাবিত বাজেটের ওপর আলোচনায় অংশ নিয়ে এসব কথা বলেন তিনি।
 
ড. হাছান মাহমুদ বলেন, পদ্মাসেতুর সমান হার্ডিঞ্জ ব্রিজ যদি বর্তমান সময়ে নির্মাণ করা হতো তাহলে খরচ হতো ৯৮ হাজার কোটি টাকা। যে তুলনায় পদ্মাসেতু তৈরিতে ৩০ থেকে ৫০ হাজার কোটি টাকা কম খরচ হয়েছে।

তথ্যমন্ত্রী বলেন, ১৯১০ সালে পদ্মা নদীর উপর হার্ডিঞ্জ ব্রিজ নির্মাণ শুরু হয়, যেটি শেষ হয়েছিল ১৯১৫ সালে। পৃথিবীতে কোনো কিছুর মূল্যমান নির্ধারণ করা হয় স্বর্ণের মূল্যের ভিত্তিতে, আর তখন ডলারও ছিল না।  হার্ডিঞ্জ ব্রিজের জন্য খরচ হয়েছিল ৪ কোটি ৭৫ লাখ ৫০ হাজার রুপি আর স্বর্ণের মূল্য ছিল তখন প্রতি ১০ গ্রাম ১৮.৯৮ রুপি।  আজকে যার মূল্যমান ৬৮ হাজার টাকা। 

তিনি বলেন, এই হিসাবে যদি হার্ডিঞ্জ ব্রিজ ধরা হয় তাহলে এতে খরচ হতো ১৭ হাজার ৩৫ কোটি টাকা। আর এর দৈর্ঘ্য হলো ১.৮ কিলোমিটার। অন্যদিকে পদ্মাসেতুর দৈর্ঘ্য ৬.১৫ কিলোমিটার। অর্থাৎ সাড়ে তিনগুণ বেশি লম্বা। যদি আজকে পদ্মাসেতুর সমান হার্ডিঞ্জ ব্রিজ নির্মাণ করা হতো তাহলে খরচ হতো ৯৮ হাজার কোটি টাকা।

তিনি আরো বলেন, হার্ডিঞ্জ ব্রিজ হচ্ছে একটি রেল সেতু। অন্যদিকে পদ্মাসেতু হলো একটি বহুমুখী সেতু, যেখানে রেললাইন ছাড়াও চার লেনের রাস্তা আছে। এটি দোতলা সেতু। এর সঙ্গে যুক্ত আছে গ্যাস ও ফাইবার অপটিক্যাল ক্যাবল। 

তথ্যমন্ত্রী বলেন, পদ্মাসেতু দেশের মানুষের আবেগ ভালোবাসা এবং সক্ষমতার প্রতীক। পদ্মাসেতু হচ্ছে শেখ হাসিনার বিশ্ব বেনিয়াদের বৃদ্ধাঙ্গুলি দেখিয়ে প্রজেক্ট বাস্তবায়নের প্রতীক।