• মঙ্গলবার   ২৮ জুন ২০২২ ||

  • আষাঢ় ১৫ ১৪২৯

  • || ২৭ জ্বিলকদ ১৪৪৩

সর্বশেষ:
পদ্মাসেতু জাতীয় সম্পদ, বিরোধিতাকারীরা জাতির শত্রু: হাইকোর্ট নিজের ভাগ্য নয়, জনগণের ভাগ্য বদলই একমাত্র লক্ষ্য: প্রধানমন্ত্রী পদ্মা সেতুতে মোটরসাইকেল নিষিদ্ধ যুক্তরাজ্যকে এক লাখ রোহিঙ্গা নিতে অনুরোধ বাংলাদেশের বিএনপির নেতিবাচক রাজনীতি পদ্মার গহীনে নিমজ্জিত: ওবায়দুল কাদের

কীভাবে বুঝবেন কোলেস্টেরল বেড়েছে

– নীলফামারি বার্তা নিউজ ডেস্ক –

প্রকাশিত: ২৭ মে ২০২২  

এমন অনেক মানুষ আছেন দেখে মনে হতে পারে একবারে সুস্থ। কিন্তু খানিকটা দ্রুত হাঁটলে বা  সিঁড়ি ভাঙলে হাঁপিয়ে উঠছেন প্রায়ই। নিশ্চিন্ত মনে হতে ভাবছেন, এ আর এমন কী, হতেই পারে। তবে জেনে রাখুন আপনার রক্তে চুপিসারে মিশে গিয়েছে একগাদা খারাপ কোলেস্টেরল। 

রক্তে কোলেস্টেরলের মাত্রা বেড়ে গেলে হৃদরোগ, উচ্চ রক্তচাপ, স্ট্রোক ও ধমনিসংক্রান্ত রোগে আক্রান্ত হওয়ার শঙ্কা বেড়ে যায়। তাই খারাপ কোলেস্টেরলকে অবহেলা করলে তার ফলও খুব একটা সুখকর হয় না। এমন অনেকের মৃত্যু হয়েছে, যাদের বুকে ব্যথা হলে হাসপাতালে নিতে নিতে হার্ট অ্যাটাক হয়, তারপর চিকিৎসক জানান কিছুক্ষণ আগেই তার মৃত্যু হয়েছে! একে বলা হয় ‘সাডেন ডেথ’, যার নেপথ্যে থাকে রক্তের খারাপ কোলেস্টেরল। 

যদিও শরীরে কোলেস্টেরলে মাত্রা বাড়লে দৃশ্যমান কোনো উপসর্গ দেখে তা বোঝার উপায় নেই। তবে খারাপ কোলেস্টেরলের মাত্রা বাড়লে শরীরে কিছু পরিবর্তন লক্ষ করা যায়। উচ্চ কোলেস্টেরল ধমনির উপর চাপ তৈরি করে। যার থেকে ‘পেরিফেরাল আর্টারিয়াল ডিজিজ’-এর ঝুঁকি বেড়ে যায়। এই প্রকার রোগে ধমনিগুলো সরু হয়ে যায় ফলে রক্ত চলাচল ব্যহত হয়। শরীরের বিভিন্ন অঙ্গে রক্ত ঠিক মতো পৌঁছাতে পারে না। এক সময় শরীরের বিভিন্ন গাঁটে যন্ত্রণা শুরু হয়। 

কোলেস্টেরল খুব বেড়ে গেলে পায়ের টেন্ডন লিগামেন্টগুলোতে প্রভাব পড়ে। এ ক্ষেত্রে পায়ের ধমনিগুলো সরু হয়ে গেলে পায়ের নিচের অংশ অনেকটা অক্সিজেনসহ রক্ত পৌঁছতে পারে না। তাতে পা ভারী হয়ে ক্লান্ত হয়ে পড়ে সহজেই। পায়ের অসম্ভব যন্ত্রণা শুরু হয়। উরু বা হাঁটুর নিচে পেছনের দিকে ব্যথা হতে পারে। হাঁটার সময়েই এই ধরনের ব্যথা বাড়ে।
একই কারণে ঘাঁড় ও হাতের সংযোগস্থলেও ব্যথা হতে পারে।। মাঝেমধ্যে এমন ব্যথায় আমরা নাজেহাল হই। খুব ঘন ঘন একই স্থানে ব্যথা হলে একটু সতর্ক থাকবেন। প্রয়োজনে চিকিৎসকের পরামর্শ নিন। 

নিতম্বেও ব্যথা হওয়া উচ্চ কোলেস্টেরলের লক্ষণ হতে পারে। যদি মাঝেমধ্যে নিতম্বে ব্যথা হয় তা হলে কিন্তু সেই লক্ষণ ভালো নয়।। এই সব লক্ষণ দেখা দিলে একবার রক্ত পরীক্ষা করে শরীরে কোলেস্টেরলের মাত্রা নিয়ন্ত্রণে আছে কিনা, তা দেখে নিতে পারেন।