• রোববার   ১৯ সেপ্টেম্বর ২০২১ ||

  • আশ্বিন ৪ ১৪২৮

  • || ১০ সফর ১৪৪৩

সর্বশেষ:
শেখ হাসিনার নেতৃত্বে প্রত্যেক নাগরিকের ভাগ্যের উন্নয়ন হয়েছে-সম্প্রচার মন্ত্রী ড. হাছান মাহমুদ রংপুর মেট্রোপলিটন পুলিশের ৩য় প্রতিষ্ঠাবার্ষিকীতে রক্তদান কর্মসূচি শেখ হাসিনার নেতৃত্ব ও দ্বিপাক্ষিক সম্পর্ককে গুরুত্ব দিয়ে আসছে সৌদি আরব প্রতিমা তৈরিতে ব্যস্ত সময় পার করছেন হাকিমপুরের মৃৎশিল্পীরা দেশের ৬৮টি কারাগারের ৮৫ হাজার কারাবন্দিকে টিকা দেওয়ার প্রক্রিয়া শুরু

শিক্ষা ও তথ্যপ্রযুক্তি খাতে প্রচুর উন্নয়ন হচ্ছে: পরিকল্পনামন্ত্রী

– নীলফামারি বার্তা নিউজ ডেস্ক –

প্রকাশিত: ৬ সেপ্টেম্বর ২০২১  

শিক্ষা ও তথ্যপ্রযুক্তিখাতসহ বিভিন্নখাতে বাংলাদেশে প্রচুর ঘাটতি রয়েছে বলে মন্তব্য করেছেন পরিকল্পনামন্ত্রী এম. এ. মান্নান। তিনি বলেন , সরকার এসব খাতের ঘাটতি পূরণে কাজ করছে। তথ্যপ্রযুক্তি খাতেও প্রচুর উন্নয়ন কর্মকাণ্ড কাজ চলছে।

গতকাল  রবিবার (৫ সেপ্টেম্বর) সুবিধাবঞ্চিত শিশুদের কারিগরি শিক্ষাদাতা প্রতিষ্ঠান ইউসেপ বাংলাদেশ আয়োজিত অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এই মন্তব্য করেন।

পরিকল্পনামন্ত্রী বলেন, বিভিন্নখাতে বাংলাদেশে প্রচুর ঘাটতি আছে। শিক্ষা ক্ষেত্রে আছে, তথ্যপ্রযুক্তিখাতসহ আরও অনেক খাতেই আমাদের ঘাটতি আছে। তবে সরকার এখন এই ঘাটতি পূরণে কাজ করছে।

এম. এ. মান্নান বলেন, আমাদের সম্পদ বেড়েছে। কারণ মানুষ কাজ করছে দেখেই আমাদের সম্পদ সৃষ্টি হচ্ছে। আর এই কারিগরি শিক্ষার মাধ্যমে এই সম্পদ আরও বাড়বে।

সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে মন্ত্রী বলেন, কৃষিখাতে উন্নতপ্রযুক্তিতে কৃষকদের দক্ষ করতে সরকারের পরিকল্পনা আছে। কৃষিকে যান্ত্রিকিকরণ এবং বাণিজ্যিকীকরণের পরিকল্পনা নিয়ে আমরা এগোচ্ছি। কারণ, কৃষি হচ্ছে বাংলাদেশের অর্থনৈতিক মেরুদণ্ড।

দরিদ্র ও সুবিধাবঞ্চিত জনগোষ্ঠী, বিশেষ করে নারী, প্রতিবন্ধী ও প্রান্তিক জনগোষ্ঠীকে ৪৯ বছর ধরে দক্ষতা উন্নয়ন ও শোভন কর্মসংস্থানের ব্যবস্থা করায় ইউসেপ বাংলাদেশের প্রশংসা করেন মন্ত্রী। তিনি বলেন, সরকারের বিভিন্ন কর্মসূচি বাস্তবায়নের লক্ষ্যে পেশাগত দক্ষতা উন্নয়ন প্রশিক্ষণ, উদ্যোক্তা উন্নয়ন প্রশিক্ষণ এবং চতুর্থ শিল্প বিপ্লব (৪ আইআর) ও আইসিটি ভিত্তিক কোর্স চালু করায় ইউসেপ এর উদ্যোগকে সাধুবাদযোগ্য।

অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথির বক্তব্যে মুজিব বর্ষ উদযাপন জাতীয় বাস্তববায়ন কমিটির প্রধান সমন্বয়ক ও প্রধানমন্ত্রীর সাবে মুখ্য সচিব ড. কামাল আবদুল নাসের চৌধুরী বলেন, বঙ্গবন্ধুর শততম জন্মবার্ষিকী উদ্‌যাপন আগামী বছরগুলোতে এ দেশের জনগণকে একটি সুখী ও সমৃদ্ধ বাংলাদেশ গড়তে উৎসাহিত করবে।
এতে আরও বক্তব্য রাখেন এনজিও বিষয়ক ব্যুরো মহাপরিচালক কে এম তারিকুল ইসলাম, ইউসেপ বাংলাদেশ-এর চেয়ারপারসন মিসেস পারভীন মাহমুদ, ইউসেপ বাংলাদেশের নির্বাহী পরিচালক মো. আবদুল করিম প্রমুখ।